চিকিৎসাবিজ্ঞান শেখাবে সুপারকম্পিউটার

এবার মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষার্থীদের চিকিৎসাবিজ্ঞান শেখাবে আইবিএমের সুপারকম্পিউটার ‘ওয়াটসন’। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওহাইয়ো অঙ্গরাজ্যের ক্লিভল্যান্ড ক্লিনিক লার্নারস কলেজ অফ মেডিসিনের শিক্ষর্থীরা চিকিৎসাবিজ্ঞানে প্রশিক্ষণ নেবেন ওয়াটসন সুপার কম্পিউটারের আর্টিফিশিয়াল ইনটেলিজেন্সের সাহায্য নিয়ে। খবর বিবিসির।

আইবিএমের তৈরি ওয়াটসন সুপারকম্পিউটার পাদপ্রদিপের আলোয় আসে মার্কিন কুইজ শো ‘জেপার্ডি’ জিতে নিয়ে। চ্যালেঞ্জিং পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে চিকিৎসকদের সাহায্য করবে ওয়াটসন।

চিকিৎসকদের মুখের কথা এবং চিকিৎসাবিজ্ঞানের পরিভাষা বুঝতে পারে এই সিস্টেম। কোনো রোগীর চিকিৎসায় সঠিক পদক্ষেপটি কি হতে পারে, শিক্ষার্থীদের এমন প্রশ্নের বিপরীতে কৃত্রিম বৃদ্ধিমত্তা এবং ডেটাবেজে সংরক্ষিত তথ্য থেকে সম্ভাব্য উত্তরগুলো খুঁজে জানাতে পারবে ওয়াটসন।

ক্লিভল্যান্ড কলেজ অফ মেডিসিনে কাজে নামার আগে থেকেই চিকিৎসাবিজ্ঞানের সঙ্গে জড়িয়ে আছে ওয়াটসন। নিউ ইয়র্কের ক্যান্সার সেন্টার চিকিৎসকদের সঙ্গে কাজ করছে এই সুপার কম্পিউটারটি। এছাড়াও পরীক্ষামূলকভাবে ওয়াটসন ব্যবহার করছে হেলথ ইনসুরেন্স কোম্পানি ওয়েলপয়েন্ট।

তবে চিকিৎসাক্ষেত্রে ওয়াটসনের মতো সুপারকম্পিউটার এবং কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তার অভিষেক অনেকেই দেখছেন নেতিবাচক দৃষ্টিতে। সমালোচকদের অনেকেই বলছেন, ওয়াটসনের ডেটাবেজের অনেক তথ্যই ভুল। কশাস পেশেন্ট ফাউন্ডেশনের টেকনোলজি পরিচালক ফ্রেড ট্রটারের মন্তব্য সুপারকম্পিউটারটির কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা যতোই ভালো হোক না কেন, এর ডেটাবেজের বেশিরভাগ তথ্যই ভুল বা আংশিক সঠিক।

ব্লগার

পোষ্টটি লিখেছেন: ব্লগার

এই ব্লগে 25 টি পোষ্ট লিখেছেন .

সম্পাদক জনকন্ঠ ব্লগ।

ব্লগার

About ব্লগার

সম্পাদক জনকন্ঠ ব্লগ।
Bookmark the permalink.

Comments are closed.