নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের ৩টি গার্ডার ভেঙে বড় ধরনের হতাহতের ঘটনা ঘটেছে

চট্টগ্রাম: নগরীর বহদ্দারহাটের অদূরে খাজা রোডে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) নির্মাণাধীন ফ্লাইওভারের ৩টি গার্ডার ভেঙে বড় ধরনের হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, অন্তত ৫ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে পুলিশ এ পর্যন্ত ২ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে। এরা দুজনই পথচারী। এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ জনতা ফ্লাইওভার নির্মাণসামগ্রী ও সরঞ্জামে আগুন ধরিয়ে দিয়েছেন। এ মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় গুর ুতর আহত অনেককে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালসহ আশপাশের বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। নিহতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে। শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ফ্লাইওভারের নিচে প্রতিদিনের মতো সবজি বিক্রেতারা পসরা সাজিয়ে বসেছিলেন। দুর্ঘটনায় এসব সবজি বিক্রেতারা হতাহত হন। পুলিশ ২ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করলেও স্থানীয়র‍া ঘটনাস্থলেই ৫ জন মারা গেছেন বলে জানিয়েছেন। চট্টগ্রাম নগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার এসএম তানভীর আরাফাত ২ জনের মৃত্যুর বিষয়টি বাংলানিউজকে নিশ্চিত করেছেন। হতাহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে জানান তিনি। চমেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এসআই জহিরুল ইসলাম ভূঁইয়া বাংলানিউজকে জানান, বহদ্দারহাট ফ্লাইওভারের দুর্ঘটনার পর এ পর্যন্ত নাজমা (২৬)সহ ৮ জনকে জরুরি বিভাগে আনা হয়েছে। এদের মধ্যে ৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আহতদের বিভিন্ন ওয়ার্ডে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি। এদিকে, ফ্লাইওভারের গার্ডার ভেঙে বহু লোক হতাহত হয়েছে মর্মে গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়লে আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে যান। একপর্যায়ে উত্তেজিত জনতা ফ্লাইওভার-নির্মাণশ্রমিকদের থাকার জন্য অস্থায়ীভাবে তৈরি করা ছাউনিতে আগুন ধরিয়ে দেন। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যায় ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের বেশ কয়েকটি গাড়ি।

পোষ্টটি লিখেছেন: আহমদ উল্লাহ

এই ব্লগে এটাই আহমদ উল্লাহ এর প্রথম পোষ্ট.

Bookmark the permalink.

Comments are closed.