নবীর অবমাননা: রাজধানীতে মিছিল-সমাবেশ

যুক্তরাষ্ট্রে চলচ্চিত্রে ‘নবীর অবমাননার’ প্রতিবাদে রাজধানীর বায়তুল মোকারম, পল্টন, কুড়িল-বিশ্বরোড, প্রগতি সরণী ও মহাখালীসহ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় মিছিল সমাবেশ করেছে বিভিন্ন ইসলামি দল।

শুক্রবার জুমার নামাজের পর বায়তুল মোকারমের উত্তর গেট থেকে ইসলামি ঐক্যজোট ও ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশ পৃথক দু’টি মিছিল বের করে।

ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের মিছিলটি উত্তর গেট থেকে বের হয়ে জাতীয় প্রেসক্লাব হয়ে পল্টন পুলিশ বক্সের সামনে যায়। সেখানে দলটির আমির সৈয়দ মোহাম্মদ রেজাউল করিম বক্তব্য রাখেন।

এ সময় ইসলামি ঐক্যজোট ছাড়াও ‘শিয়া’ সম্প্রদায়ের ব্যানারে শিয়া মতালম্বীরা পুলিশের পাহারার মধ্যে মিছিল করে।

শাহবাগ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের কোনো ধরনের ঝামেলা হয়নি।

এদিকে, জুমার নামাজের পর যমুনা ফিউচার পার্কের আশপাশের মসজিদ থেকে ‘মহানবীকে (স.) অবমাননা প্রতিরোধ কমিটির’ ব্যানারে মিছিল বের হয়ে মূল সড়কে আসে। এক পর্যায়ে পুলিশের বাধার মুখে তারা প্রগতি সরণীতে অবস্থান নিয়ে সমাবেশ করে।

পুলিশের ব্যারিকেডের মধ্যে রাস্তার একপাশে এই সমাবেশ হয় বলে ভাটারা থানার ওসি জিয়াউজ্জামান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান।

তিনি বলেন, “মিছিলের কারণে কিছুটা উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। রাস্তার এক পাশ বন্ধ থাকায় যান চলাচল কিছুটা ব্যাহত হচ্ছে।

তবে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে জানান তিনি।

ওসি বলেন, “চারজনের একটি প্রতিনিধি তার গড়িতে করে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসে এসে একটি স্বারকলিপি দেয়।”

অন্যদিকে নাজাজের পর বিভিন্ন ইসলামী দলের আরো কিছু নেতাকর্মী গুলশান থেকে মিছিল নিয়ে মহাখালীর আমতলী মোড়ে গিয়ে সমাবেশ করে।

বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাইনুল ইসলাম জানান, নেতাকর্মীরা রাস্তার একপাশে দাঁড়িয়ে কিছুক্ষণ সমাবেশ করে চলে যায়। এতে যান চলাচলে খুব একটা সমস্যা হয়নি।

যুক্তরাষ্ট্রে নির্মিত বিতর্কিত ওই চলচ্চিত্রকে কেন্দ্র করে বিশ্বের বিভিন্ন মুসলিম দেশে বিক্ষোভ চলছে। লিবিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতসহ বিভিন্ন দেশে হতাহতের ঘটনাও ঘটেছে।

বাংলাদেশেও গত কয়েক সপ্তাহ ধরে শুক্রবার জুমার নামাজের পর বিক্ষোভ দেখাচ্ছে ইসলামী দলগুলো। এ কর্মসূচিতে বাধা দেয়ায় সম্মিলিত ওলামা মাশায়েখ পরিষদ ও সমমনা ১২টি ইসলামী দল গত ২৩ সেপ্টেম্বর সারাদেশে হরতালও পালন করেছে।

ওই চলচ্চিত্রের নির্মাতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়া ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। সরকারের পক্ষ থেকেও আনুষ্ঠানিক নিন্দা জানানো হয়েছে।

পোষ্টটি লিখেছেন: নাঈমুল ইসলাম

নাঈমুল ইসলাম এই ব্লগে 2 টি পোষ্ট লিখেছেন .

Bookmark the permalink.

Comments are closed.